ঈমানকি জাতের ঈমানদার তৈরি করেছিলেন বিশ্বনবী মোহাম্মদ (স:)..?
একবার পড়ে দেখুন→

একজন মহিলা আসলেন মহানবী (সা) এর কাছে…
আর বললেন-
“হুজুর আমাকে শাস্তি দিন”

মহানবী (সা) তাকে জিজ্ঞেস করলেন-
“তুমি কি করেছ?”

মহিলা বললেন-
“হুজুর আমি ব্যভিচার (জিনা) করেছি।”

মহানবী (সা) বললেন-“তুমি কি বলছ? তোমার হুশ ঠিক আছে তো?”

মহিলা বললেন-“হুজুর আমি সত্যি বলছি। আমি জিনা করেছি। এবং গর্ভবতী হয়ে গিয়েছি।”

মহানবী (সা) বললেন-“তুমি কি এর পূর্বে একজন সাহাবীর জিনার শাস্তি মৃত্যুদন্ড দেখ নি?”

মহিলা বললেন-“জ্বী হুজুর আমি জানি। আপনি আমাকে শাস্তি দিন”

মহানবী (সা) বললেন-“ঠিক আছে, এখন তুমি গর্ভবতী, আগে তোমার সন্তান প্রসব কর। তারপর তোমার বিচার হবে।”

মহিলা চলে গেলেন। তার পিছনে কোনো প্রহরী কিংবা পাহারা দেয়া হলনা।

সন্তান প্রসব করার পর মহিলা ঠিক আবার মহানবী (সা) এর কাছে আসলেন।

মহিলা বললেন- “হুজুর আমি সন্তান প্রসব করেছি। এবার আমাকে শাস্তি দিন।”

মহানবী (সা) বললেন- “তোমার সন্তান এখনো ছোট। সে যতদিন স্তন পান করবে ততদিন তুমি মুক্ত।”

মহিলা চলে গেলেন। নেই কোনো প্রহরী, নেই কোন পাহারা। নেই কারো চাপ।
মহিলা ঠিক ই শিশু স্তন পান করা শেষ করার পর আসলেন।

মহিলা-“হুজুর আমাকে শাস্তি দিন।”

তখন মহানবী (সা) তার শাস্তি ঘোষনা করলেন। মহিলাকে শাস্তিস্বরুপ শরীরে কাপড় পেচিয়ে মাটিতে পুঁতে দেয়া হল। সকলের পাথর নিক্ষেপে মহিলার
মৃত্যু হল। জেনাহকারীর জন্য এটাই আল্লাহ প্রদত্ত শাস্তি।

মহানবী (সা) মহিলার জন্য আল্লাহর দরবারে দোয়া করলেন।

উমর (রা) বললেনঃ
“ইয়া রাসুলুল্লাহ আপনি একজন ব্যভিচারীর জন্য দোয়া করছেন?”

মহানবী (সা) বললেনঃ “সে যে তওবা করেছে তা ৭০ জন মক্কাবাসীকে যদি ভাগ করে দেওয়া হয়, ঐ ৭০ জনের জান্নাত পাওয়ার জন্যে ঐ তওবা যথেষ্ট।”
(সহীহ মুসলিম শরীফ)

কেমন ছিলেন সেই নবী..?
কেমনই বা ছিলেন তার সাহাবারা..?

আল্লাহু আকবর
আল্লাহু আকবর